Saturday, 20 July, 2024

সর্বাধিক পঠিত

কার্প জাতীয় এবং রুই জাতীয় মাছকে খাবার দেওয়ার নিয়ম

চাষির প্রশ্নCategory: মৎস্য চাষকার্প জাতীয় এবং রুই জাতীয় মাছকে খাবার দেওয়ার নিয়ম
md rayhan asked 2 weeks ago
1 Answers
এগ্রোবিডি২৪ Staff answered 2 weeks ago

কার্প জাতীয় এবং রুই জাতীয় মাছকে খাবার দেওয়ার জন্য সঠিক নিয়ম মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এতে মাছের দ্রুত বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য এবং উৎপাদন বৃদ্ধি হয়। নিচে কিছু গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশিকা দেওয়া হলো:
খাবারের ধরন

  1. কার্প জাতীয় মাছ:
    • ভাসমান খাবার (Floating feed): এটি মাছের পৃষ্ঠে ভেসে থাকে এবং মাছ সহজে খেতে পারে।
    • ডুবে যাওয়া খাবার (Sinking feed): এটি পুকুরের তলায় ডুবে যায় এবং তলায় থাকা মাছ খেতে পারে।
  2. রুই জাতীয় মাছ:
    • ভাসমান খাবার: রুই মাছ পানির উপরের স্তরে খাবার খেতে পছন্দ করে, তাই ভাসমান খাবার উপযুক্ত।

খাবারের পরিমাণ ও সময়

  1. খাবারের পরিমাণ:
    • মাছের আকার ও বয়স: ছোট মাছের জন্য খাবারের পরিমাণ কম এবং বড় মাছের জন্য বেশি হতে হবে।
    • শরীরের ওজন অনুযায়ী: সাধারণত মাছের মোট শরীরের ওজনের ২-৫% খাবার হিসেবে দেওয়া হয়।
  2. খাবারের সময়:
    • দুবার খাবার দেওয়া: সকাল ও বিকাল, দিনে দুইবার খাবার দিতে হবে।
    • নিয়মিত সময়: প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে খাবার দেওয়া উচিত, যাতে মাছের খাবারের অভ্যাস তৈরি হয়।

খাবারের ধরণ ও পুষ্টি

  1. প্রাকৃতিক খাবার:
    • প্ল্যাঙ্কটন: পুকুরে প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো প্ল্যাঙ্কটন মাছের জন্য উপকারী।
    • কেঁচো, শামুক: কেঁচো, শামুক এবং অন্যান্য জলজ প্রাণী মাছের প্রাকৃতিক খাবার হিসেবে দেয়া যেতে পারে।
  2. সংশ্লেষিত খাবার (Commercial feed):
    • প্রোটিন সমৃদ্ধ: মাছের দ্রুত বৃদ্ধির জন্য প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার দিতে হবে। মাছের খাদ্যে সাধারণত ২৫-৩৫% প্রোটিন থাকা উচিত।
    • ভিটামিন ও খনিজ: মাছের স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য ভিটামিন ও খনিজ সমৃদ্ধ খাবার দিতে হবে।

খাদ্য সরবরাহ পদ্ধতি

  1. হাতে ছিটিয়ে দেওয়া: ছোট পুকুরে হাতে ছিটিয়ে খাবার দেয়া যেতে পারে।
  2. স্বয়ংক্রিয় ফিডার: বড় পুকুরে স্বয়ংক্রিয় ফিডার ব্যবহার করে খাবার সরবরাহ করা যায়।
  3. প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার: পুকুরের কোন স্থানে প্ল্যাটফর্ম স্থাপন করে সেখানে খাবার দেয়া যেতে পারে, যাতে মাছ সহজে খেতে পারে।

খাবার দেওয়ার সময় কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়:

  1. পানির গুণমান: পানির গুণমান ভালো রাখতে হবে। পানি দূষিত হলে মাছের খাদ্যগ্রহণ কমে যেতে পারে।
  2. মাছের আচরণ পর্যবেক্ষণ: মাছের আচরণ ও খাদ্যগ্রহণের ধরন দেখে খাবারের পরিমাণ সমন্বয় করা উচিত।
  3. অতিরিক্ত খাবার না দেওয়া: অতিরিক্ত খাবার দিলে পানির গুণমান খারাপ হতে পারে এবং মাছের স্বাস্থ্যহানি হতে পারে।

এই নির্দেশিকাগুলি অনুসরণ করলে কার্প এবং রুই জাতীয় মাছের খাবার দেওয়ার পদ্ধতি সঠিকভাবে পালন করা যাবে এবং মাছের স্বাস্থ্য ও উৎপাদন ভালো হবে।

জনপ্রিয় লেখা